সমসাময়িক বিতর্ক ও তার নিরিখে বাংলা ভাষা শিক্ষার গুরুত্ব

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

যে বিষয়টা গড়পড়তা বাঙালি গোগ্রাসে গেলে , সেটাকে নিয়েই আমি কিছু লিখিনা – ”রাজনীতি” !

অথচ গত দুদিন ধরে যেভাবে সবাই ভাষাটাকে নিয়ে বিতর্কে নেমেছে ; ইচ্ছে হল দু-লাইন লিখি । আসুন প্রথমেই জেনে নি পশ্চিমবঙ্গ সরকার ঠিক কি করতে চলেছে – এ রাজ্যের সরকারী/বে-সরকারী সমস্ত স্কুল নির্বিশেষে , ক্লাস ১ থেকে ১০ পর্যন্ত তিনটে ভাষা শিখতেই হবে যার মধ্যে একটা ভাষা হবে বাংলা । অর্থাৎ আপনি প্রথম ভাষা হিসেবে ইংলিশ রাখুন কি হিন্দি , আপনাকে দ্বিতীয় কিম্বা তৃতীয় ঐচ্ছিক হিসেবে বাংলা রাখতে হবে । খুব স্পষ্ট নির্দেশ , বাংলায় থাকলে বাংলা ভাষাটাও জানতে হবে ।

কোন স্কুলে কবে ইংলিশ না বলে বাংলা বলায় শিশুরা শাস্তি পেয়েছে কিম্বা কেন্দ্রের হিন্দি অগ্রাসনের বিরদ্ধে এ এক মোক্ষম জবাব কি না – আমি এসব বিতর্কে যাবই না ! আমার বক্তব্য খুব স্পষ্ট – বাঙালি হয়ে বাংলা বলতে ও পড়তে না পারা টা লজ্জার । যে শিশু তার মাতৃভাষাটা ঠিক করে শেখেনা সে ভবিষ্যতে কোন ভাষাকেই ঠিক ভাবে আত্মস্থ করতে পারেনা । অথচ শুধু কলকাতার বুকেই এরকম বেশ কিছু স্কুল আছে , যেখানে বাংলা ভাষাটা পড়ানই হয়না । এই সব স্কুলে বাপ মায়েরা শুধু যে তাদের ছেলেদের পাঠাচ্ছেন তাই নয় , গর্ব করে বলতেও শুনেছি – আমার ছেলে তো বাংলা জানেই না ! আশা রাখি , সরকারের এই সিদ্ধান্ত অন্তত সে সব খোকা খুকুরা বাংলাটা বলতে ও পড়তে শিখবে । যাইহোক , এতে যে খুব বিশাল কিছু বদলে যাবে , সেটা নয় । কিন্ত সামান্য হলেও একটা বদল আসবে , একটা স্পষ্ট বার্তা যাবে ।

তবে সিদ্ধান্তটা কার্যকর করার সময় কিছু বিষয় মাথায় রাখা প্রয়োজন , যারা ভিন রাজ্য থেকে ক্লাস ৫/৬ এ এসে ভর্তি হবে তাদের কি হবে ? এই ক্ষেত্রে বিশেষ কোন ব্যবস্থা থাকা উচিত । আরেকটা বিতর্কিত বিষয় আছে । যে যুক্তিতে হিন্দিকে স্কুলস্তরে বাধ্যতামূলক করলে – হিন্দি অগ্রাসন বলে প্রতিবাদের ঝড় ওঠে সেই একই যুক্তিতে বাংলাকে বাংলার উপজাতি ( সাঁওতাল , ওরাও , মুন্ডা ইত্যাদি) ও পার্বত্য জনগোষ্ঠীর মধ্যে বাধ্যতামূলক করা (কিম্বা চাপিয়ে দেওয়া) উচিত নয় । হিন্দি এদেশের জাতীয় ভাষা নয় , কাজের ভাষা (Official Language) ; ঠিক তেমনই বাংলাও কিন্ত আমাদের ‘State Language’নয় । আমাদের সংবিধানই কোন ভাষাকে জাতীয় বা রাজ্যের প্রধান ভাষা (National/State Language) হিসেবে মান্যতা দেয়না !

এই বিষয়গুলো নিয়ে চর্চা দরকার । তবু , আমি সরকারের এই সিদ্ধান্তকে সম্পূর্ণ সমর্থন করি । বাঙালির মত আর কটা জাতি আছে বলুন তো যারা নিজের রাজ্যেই নিজের ভাষাকে এভাবে প্রান্তিক করে তুলছে প্রতিদিন ? আমি ব্যক্তিগত ভাবে বিশ্বাস করি ,বাংলা ভাষাটাকে শুধু স্কুলস্তরে বাধ্যতামূলক করলেই হবেনা , এর প্রসারের জন্য বাজার/দোকানের সাইন বোর্ডেও বাধ্যতামূলক করা উচিত , বিভিন্ন সরকারি/বেসরকারি ফর্ম ও পরীক্ষার প্রশ্নপত্রেও বাংলা থাকুক ।

সব শেষে বলি , আমি যেহেতু কোন বিশেষ রাজনৈতিক আদর্শে বিশ্বাস রাখিনা তাই আমার কোন ‘দল’ ও ‘মত’ কে ঠেকনা দেবার বাধ্য বাধকতা নেই । কিন্ত ‘বাংলা’ ও ‘বাংলা ভাষা’র প্রসঙ্গে আমি একেবারেই নিরপেক্ষ নই । বরং প্রবল ভাবে বাংলার পক্ষপাতিত্ব করি এবং করে যাব । আবেগ ব্যাপারটাকে যথাসম্ভব দূরে সরিয়ে রাখার চেষ্টা করলেও , যখনই প্রতুল মুখোপাধ্যায়ের কণ্ঠে শুনি – ‘বাংলা আমার দৃপ্ত শ্লোগান , ক্ষিপ্ত তির ধনুক , আমি একবার দেখি , বার বার দেখি , দেখি বাংলার মুখ’ , গায়ে কাঁটা দেয় ।

বাংলায় অল্প-বিস্তর লেখা লিখির মাধ্যমে চেষ্টা করি – সাধারনের মধ্যে স্থাপত্য বিষয়ে সচেতনতা গড়ে তুলতে । এই কাজটা করতে গিয়েই দেখেছি আমাদের এই ভাষাটাও কত দীন ! আমার বিশ্বাস যারা ‘Technical’ বিষয়কে বাংলায় লেখার চেষ্টা করেছেন , তারা সবাই আমার মত ধাক্কা খেয়েছেন ! শুধু আমার বিষয়েই অন্তত এমন একশোটা শব্দ আছে যার ঠিক-ঠাক কোন বাংলা পরিভাষা নেই । লিখতে গেলে পদে পদে আটকে যেতে হয় ! এছাড়া আরো একটা বিষয় আছে , যেটা আমাকে ধাক্কা দেয় । সেটা হল যেভাবে প্রতিদিন শিক্ষিত মধ্যবিত্ত বাঙালিদের মধ্যে বাংলা ভাষার চর্চা কমছে ! শুধু আমাদের কলেজের দিকে তাকালেই অবস্থাটা বোঝা যায় ! এই মুহূর্তে আমাদের একশ জনের ডিপার্টমেন্টে এরকম ছাত্র/ছাত্রীর সংখ্যা হাতেগোনা যারা বাংলায় দুপাতা লিখতে পারে ! আমার চোখে আমার প্রিয় ভাষাটা প্রতিদিন যে একটু একটু করে মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যাচ্ছিল , তা এই সিদ্ধান্ত সামান্য অক্সিজেন পেল । বাকিটা ভবিষ্যৎ বলবে ।

অরুনাভ সান্যাল , কোন্নগর ( ১৬/৫/২০১৭)

Subscribe to our newsletter
Sign up here to get the latest news, updates and special offers delivered directly to your inbox.
You can unsubscribe at any time

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

Leave A Reply

Your email address will not be published.

1 Comment
  1. Sagir Hussain Khan says

    চমৎকার উদ্যোগ। আমি সমর্থন জানাচ্ছি।
    বাংলাদেশেও আমরা একই ধরণের সমস্যার মধ্যে আছি। যে ভাষায় কথা বলার জন্য আমাদের অনুজরা জীবন দিয়েছিল সেই ভাষাটাকেই প্রয়োজন ছাড়াই যাচ্ছেতাই করে ফেলছি আমরা। খুব কষ্ট লাগে। তার উপর সাহিত্যাঙ্গনে কিছুটা সময় কাটানোর কারণে এই ভাষার প্রতি আবেগটা আরো অনেক বেশী।
    ভাবতে কষ্ট হয়, ভবিষ্যত প্রজন্ম কি রবীন্দ্রনাত পড়তে পারবে, নজরুলের স্বাদ আস্বাদন করতে পারবে, পারবে সাহিত্য রসে নিজেদের সিক্ত করতে?
    এ পার ও পার, দুই পারেই বাংলা ভাষা নিজ মর্যাদায় টিকে থাক সেই কামনাই রইল।
    নিজ ভাষার প্রতি আপনার দরদের জন্য আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।

error: যোগাযোগ করুন - info.sthapatya@gmail.com